শনিবার - এপ্রিল ২০ - ২০২৪

মুদিপণ্যের মূল্য বৃদ্ধিতে নাকাল ফুড ব্যাংকের গ্রাহকরা

ছবি ডেইলি ব্রেড ফুডব্যাংক

গ্রেটার টরন্টো এরিয়ার (জিটিএ) হাজারো মানুষ এখনো প্রতি সপ্তাহে ফুড ব্যাংকের ওপর আস্থা রাখছেন।  ডেইলি ব্রেড ফুড ব্যাংকের সুবিধা না পেলে তারা কি করবেন সেটা কারো জানা নেই।

ডেইলি ব্রেড থেকে জিটিএর ১৮৯টি ফুড ব্যাংকে মুদিপণ্য সরবরাহ করা হয়ে থাকে।  সবকিছুই ব্যয়বহুল হয়ে পড়ায় খাবার পাওয়াটা সত্যিই কঠিন হয়ে গেছে।  সীমিত আয়কারীদের জন্যে এটা অপরিহার্য। একজন বলেন যে, এখনো তিনি মুদি দোকানে যাওয়ার সাহস করেন। তবে যতবারই যান, মাসিক বাজেটের ওপর বাড়তি চাপ তৈরি হয়।

- Advertisement -

থর্ণক্লিফ ফুড ব্যাংকও ডেইলি ব্রেড থেকে পণ্য সরবরাহ পেয়ে থাকে। এর আয়োজকরা বলেন, এ বছর চাহিদা ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে। ফুড ব্যাংকের একজন সমন্বয়ক বলেন, আমরা সাধারণত যত সংখ্যক পরিবারকে আসতে দেখি, এখন তার চারগুন পরিবারকে আসতে দেখছি। এই অঞ্চলের অধিকাংশ মানুষই সম্প্রতি কানাডায় এসেছেন এবং পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও ইউক্রেনের নাগরিকদের নিবন্ধন লক্ষ্যণীয় হারে  বেড়ে গেছে। এটা তাদের জন্য কঠিন সময় এবং তাদের অনেকেই প্রথমবারের মতো ফুড ব্যাংকে আসছেন। তারা ফুড ব্যাংক থেকে পণ্য নিতে লজ্জাও পাচ্ছেন।

ফুড ব্যাংকে সবচেয়ে বেশি চাহিদা তৈরি হয়েছে ময়দার। থর্ণক্লিফের বাসিন্দাদের অনেকেই ত্রাণের রুটির টুকরোর পরিবর্তে নিজেরাই রুটি তৈরি করে নিতে বেশি পছন্দ করেন।

এদিকে মুদি দোকানগুলো মূল্যস্ফীতির সুযোগে পণ্যের দাম বেশি রেখে মুনাফা করছে কিনা তা খুঁজে দেখার আহবান জানিয়েছে এনডিপি। আগস্টে কানাডায় সার্বিক মূল্যস্ফীতির হার ৭ শতাংশ থাকলেও খাদ্য মূল্যস্ফীতির হার ছিল ১১ শতাংশ।

This article was written by Rezaul Haque as part of the LJI

- Advertisement -

Read More

Recent