শনিবার - এপ্রিল ২০ - ২০২৪

সিএইচইওর সহায়তায় রেড ক্রস

শিশুদের শ্বাসতন্ত্রের রোগ বেড়ে যাওয়ায় কানাডিয়ান রেড ক্রসের সহায়তা পেতে যাচ্ছে কানাডার বিখ্যাত শিশু হাসপাতাল চিলড্রেন’স হসপিটাল অব ইস্টার্ন অন্টারিও (সিএইচইও)। শিশু থেকে শুরু করে তরুণদের হাসপাতালে ভর্তির হার বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে সিএইচইও বাড়তি সহায়তার অনুরোধ করলে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে কানাডিয়ান রেড ক্রস।

- Advertisement -

রেড ক্রসের মুখপাত্র লিয়ানি মাসেলম্যান বলেন, সংস্থার তরফ থেকে ছোট দলকে হাসপাতালকর্মীদের সহায়তায় পাঠানো হবে, যা তাদের চিকিৎসায় মনোযোগ বাড়াতে সহায়তা করবে।

তবে কেব নাগাদ এ সহায়তা দেওয়া হবে সে ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট দিনক্ষণ উল্লেখ করেননি মাসেলম্যান। তবে সিএইচইওর চিফ নার্সিং এক্সিকিউটিভ ট্যামি ডিজিওভানি বলেন, চিকিৎসা দলকে সহায়তার জন্য রেড ক্রস কর্মীদের ছোট একটি আগামী সপ্তাহেই আসবে। এর ফলে পুনরায় মোতায়েন করা আমাদের কিছু কর্মী আগের ভূমিকায় ফিরে যেতে পারবেন এবং টিম সিএইচইওকে রোগীদের চাহিদা অনুযায়ী নিরাপদ ও বিশ^মানের সেবা প্রদানে সহায়ক হবে। অন্যান্য স্থানীয় স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহকারী ও কমিউনিটি কেয়ার অরগানাইজেশনগুলোর কাছ থেকেও সহায়তা পেয়েছে সিএইটইও।

গুরুতর অসুস্থ্য বিপুল সংখ্যক নবজাতক ও শিশুর চিকিৎসায় নভেম্বরে দ্বিতীয় ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট খুলেছে সিএইচইও। সরকারের উপাত্ত বলছে, ১ ডিসেম্বর অন্টারিওর শিশু ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে ১৩০টি শয্যার মধ্যে মাত্র ১০টি খালি ছিল। কিন্তু গত মাসে শিশু রোগীর সংখ্যা আইসিইউ শয্যা সংখ্যাকে ছাপিয়ে যায়।

ডিজিওভানি বলেন, মৌসুমি ফ্লু, রেসপিরেটরি সিঙ্কিশিয়াল ভায়রাস ও কোভিড-১৯Ñএই ত্রিমুখী ধাক্কা জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণে সিএইচইওকে বাধ্য করে। আমরা সার্জিক্যাল ও মেডিকেল কেয়ার ইউনিটের চিকিৎসকদের শিশুদের চিকিৎসায় মোতয়েন করেছি। ইনপেশেন্ট ইউনিটের পাশাপাশি পেডিয়াট্রিক ইনটেনসিভ কেয়ার ও জরুরি বিভাগে শয্যা এবং কর্মীও বাড়িয়েছি আমরা। মেসই সঙ্গে নন-ক্লিনিক্যাল কর্মীদের সম্ভব হলে ক্লিনিক্যাল টিমকে সহায়তা করতে বলেছি। শিশু ও তাদের পরিবারগুলোর সেবায় সিএইচইওর প্রত্যেকে সর্বোচ্চ দেওয়ার চেষ্টা করছেন।

চলমান পরিস্থিতিতে কিছু স্বাস্থ্যসেবা কর্মী ও অভিভাবকদের উচ্চবাচ্য করতে শোনা গেছে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হতাশাও প্রকাশ করেছেন তারা। তাদের মধ্যে একজন হলেন অটোয়ার পারিবারিক চিকিৎসক নিল কাপলান-মার্থ, যিনি একে সংকট হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।

অন্টারিও জনস্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, ৬ নভেম্বর পর্যন্ত প্রদেশের ছয় মাস থেকে পাঁচ বছর বয়সী শিশুদের মাত্র ৭ শতাংশ কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ পেয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই ৭ শতাংশ তারাই যাদের কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার ঝুঁকি বেশি।

This article was written by Rezaul Haque as part of the LJI

- Advertisement -

Read More

Recent