রবিবার - জুলাই ১৪ - ২০২৪

প্যাক্সলোভিডের বিতরণ বেড়েছে ১৩০%

১২ ডিসেম্বর থেকে ফার্মাসিস্টরা রোগীদের ব্যবস্থাপত্রে প্যাক্সলোভিড লিখতে পারছেন

ফার্মাসিস্টরা ব্যবস্থাপত্রে প্যাক্সলোভিড লেখান অনুমতি পাওয়ার পর কোভিড-১৯ এর চিকিৎসায় ব্যবহৃত মুখে খাওয়া অ্যান্টিভাইরাল ওষুধটির বিতরণ বেড়েছে ১৩০ শতাংশের বেশি। অন্টারিও সরকার এ তথ্য জানিয়েছে।

১২ ডিসেম্বর থেকে ফার্মাসিস্টরা রোগীদের ব্যবস্থাপত্রে প্যাক্সলোভিড লিখতে পারছেন। তার আগে ওষুধটির জন্য অন্টারিওবাসীকে চিকিৎসক বা ক্লিনিক্যাল অ্যাসেসমেন্ট সেন্টার থেকে ব্যবস্থাপত্র নিতে হতো।

- Advertisement -

অন্টারিও ফার্মাসিস্টস অ্যাসোসিয়েশনের (ওপিএ) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জাস্টিন বেটস বলেন, কম সময়ের মধ্যে এটি নিতে হয়। তাই ফার্মাসিস্টদের প্যাক্সলোভিড লেখার সুযোগ দেওয়ার মধ্যে যুক্তি রয়েছে।

উপসর্গ দেখা দেওয়ার পাঁচদিনের মধ্যে ওষুধটি নিলে কার্যকারিতা ভালো হয়। পাঁচদিন পর্যন্ত দিনে দুই ডোজ প্যাক্সলোভিড সেবন করতে হয় রোগীদের।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ১২ ডিসেম্বর থেকে প্যাক্সলোভিড বিতরণের হার ১৩১ শতাংশ বেড়ে গেছে। অন্টারিওতে ফার্মাসিস্ট, চিকিৎসক ও নার্সরা সাকল্যে প্যাক্সলোভিডের ১ লাখ ১ হাজার ব্যবস্থাপত্র ইস্যু করেছেন। কোভিড-১৯ এর কারণে যাদের গুরুতর অসুস্থ্য হওয়ার অথবা হাসপাতালে যাওয়ার ঝুঁকি রয়েছে তাদেরকেই কেবল ওষুধটি দেওয়া হয়ে থাকে। বাড়িতে বসে চিকিৎসাটি নেওয়া রোগীদের জন্য তুলনামূলক সহজ হলেও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিপুল সংখ্যক ওষুধের আন্তঃক্রিয়ার কারণে চিকিৎসা বেশ কঠিনও।

ইউনিভার্সিটি অব ওয়াটারলুর স্কুল অব ফার্মেসির সহযোগী অধ্যাপক কেলি গ্রিনড্রড বলেন, এটা ব্যস্থাপত্রে লেখা জটিল হতে পারে। অসংখ্য ওষুধ আছে, যেগুলো প্যাক্সলোভিডের সঙ্গে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে। কোলেস্টেরল ও ব্লাড প্রেসার ব্যবস্থাপনায় ব্যবহৃত সাধারণ বড়িও রয়েছে এর মধ্যে। যদিও এই প্রতিক্রিয়া কীভাবে ব্যবস্থাপনা করা যায় ফার্মাসিস্টরা সেটা বোঝেন এবং সে অনুযায়ী ডোজ পরিবর্তন করে দিতে পারেন। এটাই ফার্মাসিস্টরা করে থাকেন।

ব্যস্থাপত্রে প্যাক্সলোভিড লেখার ক্ষমতা পাওয়ার এক মাসের মধ্যে ১৩টি সাধারণ অসুখের চিকিৎসা প্রদানের দায়িত্বও ফার্মাসিস্টদের দেওয়া হয়েছে। রোগগুলো হলো হে ফিবার, ওরাল থ্রাশ, ডারমাটাইটিস, পিংক আই, মেনস্ট্রয়াল ক্র্যাম্প, অ্যাসিড রিফ্লাক্স, হেমোরয়েড, কোল্ড সোর, ইম্পেটিগো, ইনসেক্ট বাইট, টিক বাইট, স্প্রেইন অ্যান্ড স্ট্রেইন এবং ইউটিআই।

- Advertisement -

Read More

Recent