রবিবার - জুলাই ১৪ - ২০২৪

ই-সিগারেটের মেনথল স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর

সুগন্ধি ই সিগারেটে ব্যবহৃত বেশ কিছু রাসায়নিক ফুসফুসের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর বলে মনে করা হচ্ছিল নতুন এক গবেষণা বলছে ভেপ জুস ফ্লেভার সত্যিই ক্ষতিকর

সুগন্ধি ই-সিগারেটে ব্যবহৃত বেশ কিছু রাসায়নিক ফুসফুসের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর বলে মনে করা হচ্ছিল। নতুন এক গবেষণা বলছে, ‘ভেপ জুস’ ফ্লেভার সত্যিই ক্ষতিকর।

ই-সিগারেটের লিকুইডে মিন্ট ফ্লেভার যুক্ত করা সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রথা। যারা ধুমপান করে তাদের ফুসফুসের জন্য এটা মারাত্মক ক্ষতিকর বলে ইউনিভার্সিটি অব পিটবার্গের নতুন এক গবেষণায় বলা হয়েছে। গত ১০ এপ্রিল চিকিৎসা সাময়িকি রেসপিরেটরি রিসার্চে গবেষণাটি প্রকাশ করা হয়।

- Advertisement -

জ্যেষ্ঠ গ্রন্থকার ও ইউনিভার্সিটি অব পিটসবার্গের সহযোগী অধ্যাপক কাম্বেজ এইচ বেনাম বলেন, অনেকেই বিশেষ করে তরুণরা ভুলবশত ভেপকে নিরাপদ মনে করে থাকেন। কিন্তু নিকোটিনমুক্ত ভেপিং মিশ্রনেও এমন কিছু উপাদান রয়েছে যা ব্যবহারকারীর ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। খাদ্য হিসেবে কোনো কিছু ব্যবহার করা নিরাপদ হলেই যে সেটা সেবন করলেও একইভাবে নিরাপদ হবে এমন মনে করার কারণ নেই।

গবেষকদের মতে, নিয়ন্ত্রকদের নিয়ন্ত্রণের চেয়েও ভেপিং বাজার দ্রুত গতিতে বড় হচ্ছে। সুগন্ধী ভ্যাপিং পণ্য কানাডায় বাজারে চালু আছে কমপক্ষে ২০০৪ সাল থেকে। যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে এর প্রচলন ৯৯০ এর দশক থেকে। এতে ব্যবহৃত রাসায়নিক বিশেষ কোন পদ্ধতিতে ফুসফুসের ক্ষতি করছে গবেষকরাও বেশি আলোবপাত করছেন। ই-সিগারেট ব্যবহারকারীদের ফুসফুসের টিস্যু নিয়ে প্রথম গবেষণা করেন ম্যাসাচুসেটস জেনারেল হসপিটালের একদল গবেষক। ২০২২ সালে মে মাসে গবেষণাটি তারা করেন। তাতে ফিব্রোসিস ও ছোট এয়ারওয়েগুলোর ক্ষতি লক্ষ্য করা যায়। যুদ্ধফেরত সৈন্যদের নিঃশ^াসের সঙ্গে রাসায়নিক গ্রহণের কারণে সে ধরনের ক্ষতি হয়ে থাকে এটাও ঠিক একই ধরনের।

- Advertisement -

Read More

Recent