রবিবার - জুলাই ১৪ - ২০২৪

টরন্টো বিমানবন্দরে রুশ কার্গো জাহাজ জব্দ

পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেলানি জোলি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছেন ক্রেমলিনের যুদ্ধকে যারা সমর্থন করছে বা এ থেকে ফায়দা তুলে নিতে চাইছে তাদের লুকানোর কোনো জায়গা নেই এবং এই বার্তাটিই পরিস্কার করে রুশ সরকারকে জানিয়ে দিচ্ছে কানাডা

টরন্টোর পিয়ারসন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এক বছরের বেশি সময় ধরে পড়ে থাকা রাশিয়ায় নিবন্ধিত একটি কার্গো উড়োজাহাজ জব্দ করেছে কানাডিয়ান সরকার। গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স কানাডা শনিবার সন্ধ্যায় এই ঘোষণা দিয়েছে।

অ্যান্টোনভ ১২৪ উড়োজাহাজটি ভোলগা-ডেনপার এয়ারলাইন্স এলএলসি ও ভোলগা-ডেনপার গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠানের মালিকানাধীন বলে ধারণা করা হচ্ছে। ইউক্রেন যুদ্ধে ভূমিকার কারণে এই দুই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে সম্প্রতি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে কানাডা।

- Advertisement -

উড়োজাহাজটি ২০২২ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে পিয়ারসন বিমানবন্দরে পড়ে আছে। গ্রেটার টরন্টো এয়ারপোর্টস অথরিটি (জিটিএএ) ২০২২ সালের জানিয়েছিল, টরন্টোর পিয়ারসন বিমানবন্দরে পার্ক করে রাখার কারণে উড়োজাহাজটির মালিকের কাছে প্রতি মিনিটে ৭৪ সেন্ট করে পাওয়ান হচ্ছে। অর্থাৎ প্রতি ২৪ ঘণ্টায় যুক্ত হচ্ছে ১ হাজার ৬৫ ডলার ৬০ সেন্ট।

যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া হয়ে চীন থেকে আসার কিছুক্ষণ পরই রাশিয়ার উড়োজাহাজটির টরন্টো ত্যাগ করার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু কানাডিয়ান সরকারের গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে রাশিয়ার উড়োজাহাজ পরিচালনাকারীদের জন্য কানাডার আকাশসীমা বন্ধ করে দেওয়ার পর থেকে এটি অনির্দিষ্টকালের জন্য গ্রাউন্ডেড অবস্থায় রয়েছে।

গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্সের তথ্য অনুযায়ী, অর্থনীতিকে সংকুচিত করে রাশিয়াকে ইউক্রেন যুদ্ধ বন্ধ করতে বাধ্য করতে কানাডার যে পরিকল্পনা এই উড়োজাহাজ জব্দ তার প্রথম পদক্ষেপ। রাশিয়ার দৃশ্যমান কোনো সম্পদ জব্দের ঘটনাও কানাডার এটাই প্রথম। স্পেশাল ইকোনমিক মেজার আইনের আওতায় এটা দ্বিতীয় জব্দ। ফেডারেল আইন অনুযায়ী কানাডিয়ান সরকার উড়োজাহাজটি জব্দ ও ব্যবস্থাপনা করবে।

গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স তাদের ঘোষণায় বলেছে, মানবাধিকার লঙ্গণের মিকার ব্যক্তিদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কাজে এই সম্পদ ব্যবহার করা যায় কিনা সে ব্যাপারে ইউক্রেন সরকারের সঙ্গে কাজ করবে কানাডা। সেই সঙ্গে আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা ফিরিয়ে আনা অথবা ইউক্রেন পুনর্গঠনেও এ সম্পদ ব্যবহার করা যেতে পারে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেলানি জোলি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছেন, ক্রেমলিনের যুদ্ধকে যারা সমর্থন করছে বা এ থেকে ফায়দা তুলে নিতে চাইছে তাদের লুকানোর কোনো জায়গা নেই এবং এই বার্তাটিই পরিস্কার করে রুশ সরকারকে জানিয়ে দিচ্ছে কানাডা। স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রথম দিন থেকেই ইউক্রেনের পাশে রয়েছে কানাডা। তাদের পারেশ থাকা অব্যাহত থাকবে।

- Advertisement -

Read More

Recent