শুক্রবার - মে ২৪ - ২০২৪

তোপের মুখে কারেকশনাল সার্ভিস কমিশনার

কুইনস পাকে মঙ্গলবার ডগ ফোর্ড বলেন আমি চাই আমাদের সিদ্ধান্তের প্রতি কানাডিয়ানদের আস্থা থাক কমিশনারকে আমি বলছি কোনো কানাডিয়ানের আপনার সিদ্ধান্তের ওপর আস্থা নেই

কানাডার কারেকশনাল সার্ভিস কমিশনারের পদত্যাগ অথবা তাকে বরখাস্তের দাবি জানিয়েছেন অন্টারিওর প্রিমিয়ার ডগ ফোর্ড। সিরিয়াল কিলার পল বার্নাডোকে মধ্যম মানের নিরাপত্তা বিশিষ্ট কারাগারে স্থানান্তরের সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে এই দাবি তুললেন তিনি।

কুইন’স পাকে মঙ্গলবার ডগ ফোর্ড বলেন, আমি চাই আমাদের সিদ্ধান্তের প্রতি কানাডিয়ানদের আস্থা থাক। কমিশনারকে আমি বলছি, কোনো কানাডিয়ানের আপনার সিদ্ধান্তের ওপর আস্থা নেই।

- Advertisement -

বার্নার্ডোকে স্থানান্তর নিয়ে যে হৈ চৈ শুরু হয়েছে সে ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন কমিশনার অ্যানি কেলি। তবে কিন্তু কেন এ সিদ্ধান্ত নিতে হলো সে ব্যাখ্যা তিনি দেননি।

সোমবার তিনি বলেন, বার্নাডোর স্থানান্তর যে সঠি, তথ্য-প্রমাণভিত্তিক এবং ভুক্তভোগীদের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়েই করা হয়েছে সেটা নিম্চিত হতে আরও পর্যালোচনার আদেশ দিয়েছে কারেকমনাল সার্ভিস অব কানাডা। এই কারাগার ২৪ ঘণ্টা পাহারার আওতায় থাকে। বন্দিদের গতিবিধিও নিয়ন্ত্রিত এবং আমাদের কঠোর নিরাপত্তা প্রটোকল বলবৎ আছে।

মধ্যম মানের নিরাপত্তা সম্বলিত কারাগারে বন্দিরা ঘুরে বেড়াতে পারেন এবং লক-আপের মধ্যে কম সময়ই থাকতে হয় তাদের। এসব কারাগারে কর্মসংস্থানের বেশি সুযোগ থাকে।

ফোর্ড বলেন, এই ব্যক্তি কম বিধিনিষেধ, কর্মসংস্থান এবং ঘোরাফেরার অধিকার রাখে না। তার জাহান্নামে পচে মরা উচিত।

বার্নাডোকে কিংস্টনের কাছে অধিক নিরাপত্তা ব্যবস্থার মিলহ্যাভেন ইনস্টিটিউশন থেকে কুইবেকের লা মাকাজা ইনস্টিটিউশনে স্থানান্তর করা হয়েছে। কারেকশনাল সার্ভিস অব কানাডার বিবৃতিতে বলা হয়েছে, অধিক নিরাপত্তাবেশিষ্টত কারাগারের মতোই মধ্যম মানের নিরাপত্তাবেষ্টিত কারাগারেও একই ধরনের নিয়ন্ত্রণ রয়েছে।

কিন্তু ফোর্ড বলছেন, বার্নাডোর অপরাধ কানাডার ইতিহাসে সবচেয়ে নিকৃষ্ট অপরাধ। এক্ষেত্রে ১৯৯০ এর দশকের গোড়ার দিকে স্ট্রিট ক্যাথেরিন্সের কাছে ১৪ বছর বয়সী লেসলি মাহাফি এবং ১৫ বছর বয়সী ক্রিস্টেন ফ্রেঞ্চের খুনের প্রসঙ্গটি উল্লেখ করেন তিনি।

ফোর্ড বলেন, এই দুই তরুণীকে সে ধর্ষণ ও হত্যা করেছে এবং পরিবার দুটিকে আবারও পীড়নের মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে। এ ধরনের ঘটনা কানাডার ইতিহাসে দ্বিতীয়বার ঘটা উচিত নয়।

- Advertisement -

Read More

Recent