রবিবার - জুলাই ১৪ - ২০২৪

জালিয়াতির শিকার ভারতীয় শিক্ষার্থীদের ফেরত পাঠাচ্ছে না কানাডা

ভুয়া চিঠি নিয়ে ভারত থেকে যেসব আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী কানাডায় এসেছেন তাদেরকে দেশে ফেরত পাঠানো হচ্ছে না কানাডার অভিবাসন শরনার্থী ও নাগরিকত্ব বিষয়কমন্ত্রী শন ফ্রেজার এই তথ্য জানিয়েছেন

ভর্তির ভুয়া চিঠি নিয়ে ভারত থেকে যেসব আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী কানাডায় এসেছেন তাদেরকে দেশে ফেরত পাঠানো হচ্ছে না। কানাডার অভিবাসন, শরনার্থী ও নাগরিকত্ব বিষয়কমন্ত্রী শন ফ্রেজার এই তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, বহিস্কারের মুখে থাকা অভিবাসন প্রতারণার শিকার আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের প্রয়োজন হলে সাময়িক রেসিডেন্ট পারমিট দেওয়া হবে, যাতে করে তারা কানাডায় থাকতে পারেন। সেই সঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞাও প্রয়োগ করা হবে না।

- Advertisement -

অভিবাসীদের নিয়ে কাজ করা ব্যক্তি ও সংগঠনগুলো বলছে, ৭০০ এর মতো ভারতীয় শিক্ষার্থী ও গ্র্যাজুয়েট, যাদের বেশিরভাগই এসেছেন পাঞ্জাব প্রদেশ থেকে, আন্তর্জাতিক শিক্ষা অনুমতিপত্রের জালিয়াতির ঘটনায় প্রত্যাবাসনের হুমকিতে রয়েছেন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ভুক্তভোগীরা স্থায়ী বসবাসের জন্য আবেদন করার সময় জালিয়াতিগুলো ধরা পড়ে তাদের নামে প্রত্যাবাসন আদেশ ইস্যু করা হয়।

এ ধরনের শত শত শিক্ষার্থী ও তাদের সমর্থকরা গত ছয় মাস ধরে পিয়ারসন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও গ্রেটার টরন্টো এরিয়ার অন্যান্য স্থানে সমাবেশ করে আসছেন। কেউ কেউ মিসিসোগার ৬৯০০ এয়ারপোর্ট সড়কে কানাডা বর্ডার সার্ভিস এজেন্সির সদরদপ্তরের বাইরে পার্কিং লটে দুই সপ্তাহব্যাপী অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছেন। নওজোয়ান সাপোর্ট নেটওয়ার্ক (এমএসএন) কয়েক মাস ধরে পিল রিজিয়ন ও এর পাশর্^বর্তী এলাকার আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের পক্ষে সচেতনতা তৈরির কাজ করছে।

সংগঠনটির সদস্য বিক্রম কুলেওয়াল বুধবার বিকালে বলেন, আজকে কিছুটা স্বস্তি বোধ হচ্ছে। এই সংবাদ আমাদের আশাবাদী করেছে। তবে লড়াইটা শতভাগ শেষ হয়নি। ভুক্তভোগীদের চিহ্নিত সরকার ঠিক কোন পদ্ধতি ব্যবহার করবে এবং এজন্য কত সময় লাগবে তা নিয়ে উদ্বেগ এখনো রয়ে গেছে। কিছু ক্ষেত্রে প্রতারক অভিবাসন এজেন্ট ভুক্তভোগীদের খারাপ পরামর্শ দিয়েছে। ভুক্তভোগীদের সম্ভাব্য আর্থিক সমস্যার বিষয়টির দিকেও ইঙ্গিত করেন তিনি।

আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের এই দুঃসময়ে তাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কার্স অ্যালায়েন্স ফর চেঞ্জও। সেই সঙ্গে তাদের পক্ষে একটি পিটিশনেরও ব্যবস্থাপনা করছেন তিনি।

এসবের প্রেক্ষিতে শন ফ্রেজার এক বিবৃতিতে বলেছেন, প্রতারকদের খপ্পরে পড়া আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের ওপর যে পরিস্থিদিটা চাপ তৈরি করছে সেটা আমি বুঝি। আমি তাদেরকে এই আশ্বাস দিচ্ছি যে, তাদের মঙ্গল আমাদের কাছে সবার আগে। এই বিষয়টি আমি পরিস্কার করতে চাই যে, যেসব আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী জালিয়াতির সঙ্গে জড়িত নন বলে প্রমাণিত হবেন তাদেরকে ফেরত পাঠানো হবে না।

- Advertisement -

Read More

Recent