শনিবার - মার্চ ২ - ২০২৪

সুদের হার অপরিবর্তিত রাখল ব্যাংক অব কানাডা

অর্থনীতির বিচ্যুতি দৃশ্যমান হতে শুরু করায় নীতিনির্ধারণী সুদের হার অপরিবর্তিত রেখেছে ব্যাংক অব কানাডা

অর্থনীতির বিচ্যুতি দৃশ্যমান হতে শুরু করায় নীতিনির্ধারণী সুদের হার অপরিবর্তিত রেখেছে ব্যাংক অব কানাডা। তবে মূল্যস্ফীতির হার এখনো লক্ষমাত্রার চেয়ে বেশি থাকায় সুদের হার কমানোর ধারণা যাতে তৈরি না হয় সেই অবস্থান গ্রহণ করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

৫ সেপ্টেম্বর এক সংবাদ সম্মেলনে ব্যাংক অব কানাডা বলেছে, অর্থনীতিতে চাহিদা কমে আসার সাম্প্রতিক নজির এবং মুদ্রানীতির বিলম্বিত প্রভাব বিবেচনায় নিয়ে গভর্নিং কাউন্সিল নীতিনির্ধারনী সুদের হার অপরিবর্তিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

- Advertisement -

তবে দরকার হলে সুদের হার আবারও বড়ানোর দরজা খোলা রেখেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তারা বলেছে, মূল্যস্ফীতির চাপের ব্যাপারে গভর্নিং কাউন্সিল এখনো বেশ উদ্বিগ্ন এবং প্রয়োজন হলে আবারও সুদের হার বাড়ানোর জন্য প্রস্তুত।

জুলাইয়ে কানাডার মূল্যস্ফীতির হার ছিল ৩ দশমিক ৩ শতাংশ। আগের মাসে যেখানে এ হার ছিল ২ দশমিক ৮ শতাংশ। গত গ্রীষ্মের পর থেকে মূল্যস্ফীতির হার উল্লেখযোগ্য পরিমাণে হ্রাস পেলেও সামনের সামগুলোতে তা ৩ শতাংশের মধ্যে থাকবে বলে অনুমান করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

মূল্যস্ফীতির হার আরও কমে আসার আগে গ্যাসোলিনের উচ্চ মূল্যের কারণে তা আবারও বাড়তে পারে বলে স্বীকার করে নিয়েছে ব্যাংক অব কানাডা।

অর্থনীতির সাম্প্রতিক দুর্বল সূচকের কথা বিবেচনায় নিয়ে ব্যাংক অব কানাডা সুদের হার যে অপরিবর্তিত রাখবে সেটা প্রত্যাশিতই ছিল। প্রয়োজনের তুলনায় অর্থনীতিকে বেশি দুর্বল না করেও মূল্যস্ফীতিকে কীভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায় ব্যাংক অব কানাডা সেই চেষ্টা করতে থাকায় সবার দৃষ্টি এখন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের দিকে। সুদের হার যে আবার বাড়তে পারে তারা সে দরজা উন্মুক্ত রেখেছে। তবে আমাদের পর্যবেক্ষণ বলছে, প্রবৃদ্ধি তুলনামূলক শ্লথ হওয়ায় এবং কোর মূল্যস্ফীতির হ্রাস অব্যাহত থাকায় ব্যাংক অব কানাডা সুদের হার আবারও বাড়াতে পারে।

স্ট্যাটিস্টিকস কানাডা তাদের সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে বলেছে, চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কানাডার মোট দেশজ উৎপাদন সংকুচিত হয়েছে। এই উপাত্ত পূর্বাভাসদাতাদের মধ্যে এই ধারণার জন্ম দিয়েছে যে, সুদের হার বৃদ্ধি নাও করা হতে পারে।

ব্যাংক অব কানাডা বলেছে, কানাডার অর্থনীতি দুর্বল প্রবৃদ্ধির মধ্যে ঢুকে পড়েছে। মূল্যস্ফীতির চাপ কমানোর জন্য এটা দরকার ছিল।

কানাডার শ্রমবাজারও কিছুটা হলেও গতিশীলতা হারিয়েছে। এই নিয়ে টানা তৃতীয় মাসের মতো বেকারত্বের হার বেড়েছে।

This article was written by Rezaul Haque as part of the LJI

- Advertisement -

Read More

Recent