শনিবার - মার্চ ২ - ২০২৪

গাজার হাসপাতালে বোমা হামলাকে অগ্রহণযোগ্য বললেন ট্রুডো

গাজার হাসপাতালে বোমা হামলাকে একেবারেই অগ্রহণযোগ্য বলে আখ্যায়িত করেছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো

গাজার হাসপাতালে বোমা হামলাকে একেবারেই অগ্রহণযোগ্য বলে আখ্যায়িত করেছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। নাজুক মানবিক পরিস্থিতির মধ্যে অবরুদ্ধ অঞ্চলটির বাসিন্দাদের সরিয়ে নিতে সহায়তার জন্য কানাডা মিশরে প্রস্তুত রয়েছে ফেডারেল কর্মকর্তারা নিশ্চিত করেছেন।

গাজা সিটির একটি হাসপাতালে ইসরায়েলের রকেট হামলায় বিপুল সংখ্যক ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। হাসপাতালটিতে বহু মানুষ আশ্রয় নিয়েছিল। হামাস পরিচালিত গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এই বিস্ফোরণের কারণ হিসেবে ইসরায়েলের বিমান হামলাকে দায়ী করেছে। তবে ইসরায়েলের পক্ষ থেকে ফিলিস্তিরি জঙ্গিদের মধ্যকার মিসফায়ারের কারণে এই বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে দাবি করা হয়েছে। বুধবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক পোস্টে ট্রুডো বলেন, সত্যি সত্যিই কী ঘটেছে আমাদের সবাইকে অবশ্যই তা খুঁজে বের করতে হবে। এখানে অবশ্যই জবাবদিহিতা থাকতে হবে।

- Advertisement -

এর আগে পরিস্থিতিকে পুরোপুরি অগ্রহণযোগ্য বলে দাবি করেছিলেন ট্রুডো। ফ্রেঞ্চ ভাষায় সাংবাদিকদের তিনি বলেন, হাসপাতালে বোমা হামলা আইনসিদ্ধ নয়। গাজা থেকে যে খবর আসছে তা আতঙ্কের। এক্ষেত্রে এবং সবক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক মানবিক ও আন্তর্জাতিক আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকতে হবে। যুদ্ধের একটি নিয়ম রয়েছে এবং হাসপাতালে হামলা গ্রহণযোগ্য নয়।

গাজার পরিস্থিতি দ্রুত খারাপ হওয়ার মধ্যেই বোমা হামলার এই খবর এল। ইসরায়েল ওই অঞ্চলে পানি, জ্বালানি ও খাবার সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়ায় যেকোনো সময় পরিস্থিতি ভেঙে পড়তে পারে বলে আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থাগুলো সতর্ক করে দিয়েছে।
গত ৭ অক্টোবর হামাসের জঙ্গিরা ইসরায়েলের বেসামরিক নাগরিকদের ওপর আকস্মিক হামলা চালানোর পর এই সংঘাত শুরু হয়। ওই হামলার ফলে ইসরায়েল যুদ্ধ ঘোষণা করে। হাসপাতালে বিস্ফোরণের আগ পর্যন্ত যুদ্ধে উভয় পক্ষের চার হাজারের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে।

হামাসনিয়ন্ত্রিত গাজা ভূখন্ডে যাতে ওষুধের মতো মানবিক সহায়তা সরবরাহ ও কর্মীরা পৌঁছাতে পারে সেজন্য যেসব দেশ মানবিক করিডোর স্থাপনের চেষ্টা করছে কানাডা তাদের অন্যতম।
২০০২ সাল থেকে কানাডা হামাসকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে তালিকাভুক্ত করে রেখেছে।

ইসরায়েলি সেনাবাহিনী এর আগে গাজার ১০ লাখ ফিলিস্তিনিকে তাদের ঘরবাড়ি ছেড়ে দক্ষিণে চলে যেতে বলে। সম্ভাব্য স্থল অভিযানের লক্ষ্যে এই নির্দেশ দেয় তারা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ইসরায়েল সফরকে কেন্দ্র করে এই অভিযান আপাতত শুরু হয়নি। এ ছাড়া গাজা সীমান্ত খুলে দেওয়ার ব্যাপারে বিভিন্ন দেশ কূটনৈতিক চেষ্টা অব্যাহত রাখার কারণেও এই অভিযান এখনো শুরু করেনি ইসরায়েলি সেনাবাহিনী।

বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থা ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর এই নির্দেশকে রোগীদের জন্য মৃত্যুদ- বলে উল্লেখ করেছে। এ ছাড়া সংস্থাটি উভয় পক্ষের প্রতি ওই অঞ্চলে জীবন রক্ষাকারী সামগ্রী ও কর্মীদের পৌঁছাতে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।

- Advertisement -

Read More

Recent