শুক্রবার - জুন ২১ - ২০২৪

গ্র্যান্ডপ্যারেন্ট প্রতারণা নিয়ে আরবিসির সমালোচনা

গ্র্যান্ডপ্যারেন্ট প্রতারণার শিকার হয়ে ৮ হাজার ডলার খোয়ানো এক জ্যেষ্ঠ নাগরিকের ছেলে আরবিসির ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন

তথাকথিত গ্র্যান্ডপ্যারেন্ট প্রতারণার শিকার হয়ে ৮ হাজার ডলার খোয়ানো এক জ্যেষ্ঠ নাগরিকের ছেলে আরবিসির ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি বলেছেন, ব্যাংকের সতর্কতা সংকেত দেখা ও অর্থ উত্তোলন প্রতিরোধ করা উচিত ছিল।

এক সাক্ষাৎকারে প্যাট্রিক উইন্টার বলেন, ব্যাংকের কর্মীদের এই প্রতারণা চিহ্নিত করার কোনো সক্ষমতাই নেই। ব্যাংকও বিষয়টি দেখতে প্রতিভাবনদের নিচ্ছে না।

- Advertisement -

তিনি বলেন, ১ আগস্ট তার মা তার নাতি পরিচয়ে কোনো একজনের কাছ থেকে ফোন পান। তবে মায়ের নাম প্রকাশ করতে চাননি তিনি। গত বছরের ডিসেম্বরে সিটিভি নিউজ টরন্টো যে ধরনের প্রতারণা নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল এটিও একদমই সেরকমই ছিল। প্রতারকরা জানায় যে, তার নাতি তার এক বন্ধুর সঙ্গে গাড়িতে ছিলেন এবং একটি দুর্ঘটনা ঘটেছে। এরপর গাড়িতে মাদক পাওয়া গেছে।

উইন্টার বলেন, তার মা ব্যাংকে যান এবং অর্থ উত্তোলনের অনুরোধ করেন। অনুরোধটি অনুমোদনের আগে টেলার তার মাকে তিনটি নিরাপত্তা সংক্রান্ত প্রশ্ন করেন। কিন্তু প্রতারকদের কারণে অর্থ উত্তোলনের কারণ হিসেবে মিথ্যা বলতে বাধ্য হন তিনি। এরপর তহবিলটি দেওয়া হয় তাকে। এই প্রতারণার ক্ষেত্রে এটা সাধারণ কৌশল বলে জানিয়েছে কানাডিয়ান ব্যাংকারস অ্যাসোসিয়েশন।

উইন্টার বলেন, তিনি ও তার বোন বিষয়টি জানার পর মাকে বলেন যে, তিনি প্রতারকদের কবলে পড়েছেন এবং বিষয়টি তারা পুলিশকে অবহিত করেন।

তার মা অর্থ খোয়ানোর পর উইন্টার বলেন, এ ঘটনায় আমার মা লজ্জিত হয়েছেন। প্রতারণাটি সংঘটনের দিকে যদি আপনি ফিরে তাকান তাহলে এটাই সাধারণ প্রতিক্রিয়া হবে। তারা কতটা বোকা লোকজন তা বুঝতে পারেন তখন।

উইন্টার বলেন, এই ঘটনার পর মায়ের পক্ষ হয়ে ব্যাংকে একটি অভিযোগ দেন তিনি। তাতে উত্তোলিত অর্থ তার মায়ের কাছে ফেরত দেওয়ার আবেদন করা হয়। সেই সঙ্গে ব্যাংকের প্রতারণা প্রতিরোধের পদক্ষেপ পর্যালোচনা ও শক্তিশালী করারও দাবি জানানো হয়।

১ আগস্টের লেনদেনের ক্ষেত্রে ব্যাংকের নিজস্ব প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হয়েছিল কিনা সেটা পরীক্ষা করে দেখবে বলে আরবিসির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। উইন্টার বলেন, ব্যাংক তাদের নিজস্ব প্রক্রিয়া অনুসরণ করেছে কিনা সেটা তারা তদন্ত করে দেখবে বলে জানিয়েছে। জবাবে আমি বলেছি, আপনাদের পদ্ধতিটি কোনো কাজের নয়। আপনারা কেবল বলতে পারেন, হ্যা, আমরা করেছি। এটাই তারা বলেছে।

আরবিসি উত্তোলিত অর্থ ফেরত দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে বলে জানান উইন্টার। সেই সঙ্গে প্রতারণা প্রতিরোধের পদক্ষেপ শক্তিশালী করার অনুরোধও উপেক্ষা করেছে আরবিসি।

- Advertisement -

Read More

Recent