শনিবার - মার্চ ২ - ২০২৪

মুসলিম কিনা জানতে চাওয়ায় টরন্টোর এক ট্যাক্সিচালকের প্রতিবাদ

অপরিচিত এক হামলাকারী টরন্টোর এক ট্যাক্সিচালক মুসলমান কিনা জানতে চেয়ে কিছু একটা তার দিকে ছুড়ে মারে এবং তার চোখ জ্বালা করতে থাকে এ ঘটনায় প্রতিবাদে সরব হয়েছেন ওই ট্যাক্সিচালক

অপরিচিত এক হামলাকারী টরন্টোর এক ট্যাক্সিচালক মুসলমান কিনা জানতে চেয়ে কিছু একটা তার দিকে ছুড়ে মারে এবং তার চোখ জ্বালা করতে থাকে। এ ঘটনায় প্রতিবাদে সরব হয়েছেন ওই ট্যাক্সিচালক।

১৪ নভেম্বর ভোর সাড়ের চারটার কিছু আগে আগে ওই চালক ফ্রন্ট অ্যান্ড ইয়ং স্ট্রিটে লাল বাতি দেখে থামলে এ ঘটনা ঘটে। নিরাপত্তার কারণে সিটিভি নিউজ টরন্টো ওই চালকের প্রথম নাম বিলাল উল্লেখ করতে রাজি হয়েছে। এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, আমি জানালার কাচ কিছুটা নামিয়ে ওই ব্যক্তিকে ক্যাব লাগবে কিনা জিজ্ঞাসা করি। এরপর ওই ব্যক্তি আমার দিকে তাকিয়ে জানতে চায়, আমি কি মুসলিম? জবাবে বলি, হ্যা, আমি মুসলিম। এরপর সে আমার চোখে কিছু একটা ছুড়ে মারে এবং অকথ্য ভাষা ব্যবহার করে।

- Advertisement -

বিলাল বলেন, এ ঘটনার পরপরই ৯১১ এ ফোন করি এবং দ্রুত হাসপাতালে যাই। হাসপাতালে তার চোখ ধুয়ে ফেলা হয়।

মসন্দেহভাজন ওই ব্যক্তি ততক্ষণে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। এরপর তার আর কোনো হদিশ পাওয়া যায়নি।

টরন্টো পুলিশ জানিয়েছে, তারা ঘটনাটি সম্পর্কে জানতে পেরেছে এবং তাদের হেইট ক্রাইম ইউনিট তদন্তে যোগ দিয়েছে।

১৫ নভেম্বর রাতে পুলিশ সন্দেহভাজন ওই ব্যক্তিকে শনাক্তে তার বিবরণ প্রকাশ করেছে। বিবরণ অনুযায়ী, ২০ থেকে ৩০ বছর বয়সী ওই ব্যক্তির উচ্চতা ৬ ফুট। ঘটনার সময় তার পরনে ছিল কালো কোট ও কালো প্যান্ট।

এ ঘটনায় যারপরনাই হতাশা ব্যক্ত করেছেন বিলালের সিস্টার-ইন-ল। সিটিভি নিউজ টরন্টোকে তিনি বলেন, এটা আমকে খুবই পীড়া দিচ্ছে যে, এ ধরনের একটি প্রগতিশীল দেশ যার সামনে যাওয়ার কথা তা না গিয়ে এ জাতীয় ঘটনার মধ্য দিয়ে পেছনের দিকে যাচ্ছে। কেবলমাত্র ধর্মের কারণে বিলালের ওপর হামলা চালানো হয়েছে এবং এটাকে আমি কোনোভাবেই ন্যায্য মনে করি না। বহু সংস্কৃতির দেশ হওয়া সত্ত্বেও কানাডায় হেইট ক্রাইমের ঘটনা ঘটছে। আমি যে শহরে বাস করি সেখানেও এ ধরনের ঘটনা প্রতিদিনই ঘটছে।

বিলালের চোখে ঠিক কী ছুড়ে মারা হয়েছিল এখনো তা শনাক্ত করা যায়নি। তবে তার চোখে স্থায়ী কোনো ক্ষতি হতে পারে কিনা সে ব্যাপারে নিশ্চিত হতে একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের কাছে তার যাওয়ার কথা ছিল।

টরন্টো পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, চলমান ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধের মধ্যে হেইট ক্রাইম সংক্রান্ত কলের সংখ্যা নাটকীয়ভাবে ১৩২ শতাংশ বেড়ে গেছে। যুদ্ধের প্রথম কয়েকদিনে ৭ থেকে ৯ অক্টোবর হেইট ক্রাইমের ১৪টি ঘটনার ব্যাপারে কল পায় পুলিশ। ২০২১ একই সময়ে এ সংক্রান্ত মাত্র পাঁচটি কল পেয়েছিল পুলিশ।

- Advertisement -

Read More

Recent