বৃহস্পতিবার - এপ্রিল ১৮ - ২০২৪

যেসব শহরে বাড়ির দাম সবচেয়ে বেশি কমেছে

বার্লিংটনসহ অন্টারিওর বেশ কিছু শহরে বাড়ির দাম কমতে দেখে নতুন যারা বাড়ির মালিক হয়েছেন তারা পীড়ন অনুভব করতে পারেন

বার্লিংটনসহ অন্টারিওর বেশ কিছু শহরে বাড়ির দাম কমতে দেখে নতুন যারা বাড়ির মালিক হয়েছেন তারা পীড়ন অনুভব করতে পারেন। গত ১২ মাসে বাড়ির দামের ক্ষেত্রে সবচেয়ে খারাপ করেছে বার্লিংটন। নতুন এক প্রতিবেদনে এমনটাই বলা হয়েছে।
কানাডার বড় শহরগুলোর ২০২২ ও ২০২৩ সালের কন্ডো ও একক পরিবারের বাড়ির দাম পর্যালোচনা করা হয়েছে পয়েন্ট২হোমস প্রতিবেদনে। তাতে দেখা গেছে, বার্লিংটনে ২০২২ সালের শেষ দিকে যারা একক পরিবারের বাড়ি কিনেছেন প্রতিদিন লোকসান করেছেন গড়ে ১৬৩ ডলার, বছরশেষে যার পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় ৬০ হাজার ডলার।

২০২৩ সালে শহরটিতে একক পরিবারের দাম নেমে আসে ১২ লাখ ৮১৭ ডলারে। ২০২২ সালে একই বাড়ির দাম ছিল ১২ লাখ ২৬০ ডলার।

- Advertisement -

বার্লিংটনের অবস্থা সবচেয়ে খারাপ হলেও একক পরিবারের বাড়ির মূল্য বিবেচনায় অন্টারিওর অন্যান্য শহরও পিছিয়েছে। মারখামের বাড়ির মালিকরা খুইয়েছেন প্রতিদিন ১৫৪ ডলার বা বছরে ৫৬ হাজার ৪৩ ডলার। মিসিসোগার বাড়ির মালিকরা প্রতিদিন লোকসান করেছেন ১১৪ ডলার করে, বছরে যা পরিমাণ দাঁড়ায় ৪১ হাজার ৭৪০ ডলার। কিচেনারে ২০২২ সালের শেষ দিকে যারা একক পরিবারের বাড়ি কিনেছেন তারা প্রতিদিন হারিয়েছেন ১০৯ ডলার বা বছরে ৩৯ হাজার ৮৫০ ডলার।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কানাডার ৬৭টি বড় শহরের বছরওয়ারি বাড়ির মূল্য পরিবর্তনের পর্যালোচনায় দেখা যায়, ১৮টি শহরের একক পরিবারের এবং ২৬টি শহরের কন্ডো মালিকরা গত বছরে তাদের বাড়ির মূল্যমান হারিয়েছেন। এক সময় আবাসনে বিনিয়োগকে সবচেয়ে নিরাপদ মনে করা হলেও ২০২৩ সালে অলিখিত সেই নিয়ম ভেঙে গেছে।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, কন্ডোর মালিকরা মূল্যমান হারিয়েছেন আরও বেশি। অন্টারিওতে কন্ডোর মূল্যমান সবচেয়ে বেশি কমেছে লন্ডন ও মিসিসোগায় যথাক্রমে ৬ ও ৫ দশমিক ৮ শতাংশ হারে। এর অর্থ হচ্ছে মিসিসোগার কন্ডো মালিকরা এক বছরে বাড়ির মূল্যমান হারিয়েছেন ৩৬ হাজার ডলার। আর লন্ডনে কন্ডো মালিকরা হারিয়েছেন ২২ হাজার ৬০০ ডলার।

কানাডার সবচেয়ে বড় শহর টরন্টোতে কন্ডোর দাম ৩ দশমিক ২ শতাংশ হ্রাস পেলেও একক পরিবারের বাড়ির দাম বেড়েছে দশমিক ৪ শতাংশ।

অন্টারিওর যেসব শহরে একক পরিবারের বাড়ির দাম সবচেয়ে বেশি হারে হ্রাস পেয়েছে তার মধ্যে প্রথমেই আছে কিচেনারের নাম। শহরটিতে এক বছরে একক পরিবারের বাড়ির দাম কমেছে ৪ দশমিক ৯ শতাংশ বা ৩৯ হাজার ৮৫০ ডলার। এরপর বার্লিংটনে কমেছে ৪ দশমিক ৭ শতাংশ বা ৫৯ হাজার ৫৮৩ ডলার, মারখামে ৩ দশমিক ২ শতাংশ বা ৫৬ হাজার ৪৩ ডলার, মিসিসোগায় ৩ দশমিক ১ শতাংশ বা ৪১ হাজার ৭৪০ ডলার, ওশোয়াতে ২ দশমিক ৮ শতাংশ বা ২৩ হাজার ৪৫১ ডলার, ব্র্যাম্পটনে ২ দশমিক ৬ শতাংশ বা ২৮ হাজার ৭৯৭ ডলার, মিল্টনে ২ দশমিক ৪ শতাংশ বা ৩০ হাজার ৫৪৪ ডলার, হুইটবিতে ২ দশমিক ২ শতাংশ বা ২৪ হাজার ২৯৭ ডলার, ওকভিলে ১ দশমিক ৭ শতাংশ বা ২৮ হাজার ৮১৫ ডলার এবং রিচমন্ড হিলে ১ দশমিক ৩ শতাংশ বা ২৩ হাজার ৫৭৬ ডলার।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, কন্ডোর দাম কমার হারে অন্টারিওর শহরগুলোর মধ্যে শীর্ষে রয়েছে লন্ডন। এক বছরে শহরটিতে কন্ডোর দাম কমেছে ৬ শতাংশ বা ২২ হাজার ৬০০ ডলার। এরপর মিসিসোগায় কমেছে ৫ দশমিক ৮ শতাংশ বা ৩৬ হাজার ৬০০ ডলার, ব্যারিতে ৫ দশমিক ৩ শতাংশ বা ২৮ হাজার ডলার, সেইন্ট ক্যাথারিন্সে ৪ দশমিক ১ শতাংশ বা ১৮ হাজার ৪০০ ডলার, নায়াগ্রা ফলসে ৪ দশমিক ১ শতাংশ বা ১৮ হাজার ৪০০ ডলার, হ্যামিল্টনে ৩ দশমিক ৩ শতাংশ বা ১৬ হাজার ৩০০ ডলার, টরন্টোতে ৩ দশমিক ২ শতাংশ বা ২৩ হাজার ২০০ ডলার, ব্র্যাম্পটনে ৩ শতাংশ বা ১৭ হাজার ৩০০ ডলার, ক্ল্যারিংটনে ৩ শতাংশ বা ১৬ হাজার ৫০০ ডলার এবং ব্র্যান্টফোর্ডে ১ দশমিক ৪ শতাংশ বা ৫ হাজার ৪০০ ডলার।

This article was written by Rezaul Haque as part of the LJI

- Advertisement -

Read More

Recent