বৃহস্পতিবার - এপ্রিল ১৮ - ২০২৪

কানাডার প্রধানমন্ত্রীর উইন্ডসর সফর

কানাডার প্রধানমন্ত্রীর উইন্ডসর সফর

আমাদের এই ছোট্ট শহরে একটি বিরাট ঘটনা ঘটে গিয়েছে।

কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডু এসেছেন আমাদের সাথে দেখা করতে। তবে মজার ব্যপার হলো রাস্তা ঘাটে, অলিতে গালিতে কিংবা শহরের কোন টাউনহলে এই আগমনের বিন্দুমাত্র কোন চিহ্ন নেই। পতাকাবাহী সুসজ্জিত কোন গাড়ীর বহর নেই, সারি সারি স্কুল বাচ্চাদের সম্বর্ধনার কোন আয়োজনও নেই। শুধুমাত্র রেডিও কিংবা টিভি দেখলেই শুধু বুঝা যায় প্রধানমন্ত্রী এখন উইন্ডসরে আছেন।

- Advertisement -

ভোরের ফাইটে এসে কানাডার প্রধান মন্ত্রী যখন শহরে নামলেন, অনেকেই তখনো ঘুমে। এই সকালেই উনি মিটিং করেছেন ট্রেড ইউনিয়নের শ্রমিক নেতাদের সাথে, দুপুরে মিটিং করেছেন স্বেচ্ছা সেবী সংগঠন “লাইফ আফটার ফিফটি” এর সিনিয়রদের সাথে। পড়ন্ত বেলায় মিটিং করেছেন স্থানীয় প্রেস এবং মিডিয়ার সাথে।

ব্যস্ত সারাদিন – তবে এ এক আলামতহীন অদৃশ্য ব্যস্ততা!

সকাল থেকেই উইন্ডসরে বৃষ্টি হচ্ছে। কখনো মুষল ধারে, আবার কখনোবা ইলশে গুড়ি। এই দিনে হয়ত মুগডালের ভূনা খিচুড়ি আর কষা মাংসের রেজালা হলে জমত ভাল। কিন্তু রোজার দিনে এসব কিছুই চলবে না। তবে টিনের চালার বারান্দায় বসে বৃষ্টি দেখতে আর বৃষ্টির রিমিঝিমি আওয়াজ শুনতে বেশ ভালই লাগছিল।

তবে উপায় নেই। এই বৃষ্টিতেই বের হতে হবে আজ।

গন্তব্য ওয়াকারভিল ব্রুয়ারী। জানা দরকার ব্রুয়ারী কি? ব্রুয়ারী হচ্ছে বানিজ্যিক ভাবে তাৎখনিক বিয়ার উৎপাদন এবং পরিবেশনের প্ল্যান্ট। কেন জানিনা শহরে মন্ত্রী কিংবা প্রধানমন্ত্রী আসলে অধিকাংশ সময়ই দেখা সাক্ষাতের আয়োজন হয় ব্রুয়ারীতে। একটু বিয়ারে গলা ভেজাবে আর গল্প হবে। সাথে অবশ্যই ফ্রেঞ্চ ফ্রি, চিকেন, নাচোজ এগুলো নেয়া যায়। তবে ব্রুয়ারীতে রুট বিয়ার সহ অন্যান্য অ্যালকোহল বিহীন পানীয়ও পরিবেশন করা হয়ে থাকে। তাই নন-অ্যালকোহলিকদের জন্য ব্যবস্থা একটা আছে।

আমাদের আজকের প্রধানমন্ত্রীর সাথে বৈঠকের স্থান নির্ধারিত হয় এই ওয়াকারভিল ব্রুয়ারীতে। কানাডার ঐতিহ্যবাহী পানীয় তৈরীর প্রতিষ্ঠান হিরাম ওয়াকার এন্ড সন্স এর মালিক ওয়াকার সাহেব শত বছর আগে তৈরি করেছিলেন এই ব্রুয়ারী। যা আজ ও উইন্ডসরের এক বিশাল ঐতিহ্য।

কানাডার প্রধানমন্ত্রীর সাথে গল্প করার আমন্ত্রন বলে কথা।

এই রোজা রমজানের দিনেই রওয়ানা হলাম ব্রুয়ারীতে। যে দেশের যে কালচার। কি আর করা! তবে ভাবলাম ভালই হবে। ঈমানের পরীক্ষা হবে আজ!!

তবে অবাক ব্যপার হলো আজ প্রধানমন্ত্রী নিজে কিংবা আমাদের এম পি এরিক কুজমিয়ারচেক অথবা গ্রীট এন্ড মিটে যোগদেয়া প্রায় কেউই কোন বিয়ার কিংবা খাবার হাতে নেননি আজ। হয়তোবা রমজানের দিন বলেই হয়ত এটি হয়নি। গত বছর রাজধানী অটোয়াতে এ ধরনের একটি পানশালায়ই আমরা মিলিত হই প্রধানমন্ত্রীর সাথে। তখন আমাদের প্রায় সবার হাতেই ছিল সফট ড্রিংক কিংবা হার্ড ড্রিংক। আজকের এই ব্যতিক্রম আমার কাছে ভাল লেগেছে।

ভেবেছিলাম অনেক খোলামেলা গল্প হবে আজ। যদিও তা আর তেমনভাবে হয়নি। তবে কথা হচ্ছিল আমি এবং বাকি ভাই সহ তিনজনের একটি গ্রুপ ছবি নেয়ার প্রাক্কালে। আমার দিকে নিজ থেকেই হাত বাড়িয়ে করমর্দন করে বিদায় নিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বললেন –

: থ্যাংক-ইউ ফর এটেন্ডিং মি।

আমি আমাদের উইন্ডসর ওয়েস্ট রাইডিং এসোসিয়েশন নিয়ে একটু বললাম এবং একটি গ্রুপ ছবি নিতে চাইলাম।

তখন জাস্টিন ট্রুডু হেসে বললেন-

: দিস ইজ দ্যা সিক্সথ টাইম আই এম গেটিং পিকচার উইথ ইয়উ।

: ওকে লেটস গো।

অবাক ব্যপার উনি মনে রাখেন কিভাবে। আমার নিজেরই তো আরো কয়বার উনার সাথে ছবি উঠিয়েছি তা মনে নেই। কিন্তু আমাদের প্রধানমন্ত্রী ঠিকই মনে রেখেছেন। মেধার প্রখরতা দেখে বুঝলাম – একেই বলে রাজনীতিবিদ।

আর একবার ভাবলাম: রাজনীতি আসলে কি?

কোথায় ছিলাম আর কোথায় আছি।

কি রাজনীতি একদা দেখেছি আর কি রাজনীতি এখন এখানে দেখছি।

সবই বিষ্ময়, শুধুই বিষ্ময়!!

- Advertisement -

Read More

Recent