শুক্রবার - মে ২৪ - ২০২৪

৮৭ বছর বয়সে কিডনি প্রতিস্থাপন

সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি হিসেবে কিডনি প্রতিস্থাপন সেবা নিয়ে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে নাম লিখিয়েছেন গ্রেটার টরন্টো এরিয়ার জিটিএ এক বাসিন্দা

সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি হিসেবে কিডনি প্রতিস্থাপন সেবা নিয়ে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে নাম লিখিয়েছেন গ্রেটার টরন্টো এরিয়ার (জিটিএ) এক বাসিন্দা। ২০২৩ সালে জুনে মারখামের বাসিন্দা ওয়াল্টার তাওরো সেইন্ট মাইকেল’স হসপিটালে যখন সেবাটি নেন তখন তার বয়স ছিল ৮৭ বছর। এর কয়েক মাস পর এ বছরের মার্চে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস পুরুষদের মধ্যে সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি হিসেবে কিডনি প্রতিস্থাপন সেবা গ্রহীতা হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে তাকে।

তাওরো বলেন, চার বছর ধরে তিনি ডায়ালিসিস সেবা নিচ্ছিলেন। প্রতি একদিন অন্তর অন্তর কিডনি রোগের চিকিৎসার জন্য তাকে ঘণ্টাব্যাপী সময় হাসপাতালে ব্যয় করতে হতো। এটা তাকে দারুণভাবে ক্লান্ত ও দুর্বল করে তুলেছিল। এ কারণেই তিনি অস্ত্রোপচারের কথা ভাবেন।

- Advertisement -

তিনি বলেন, প্রত্যেকেই আমাকে না করেছিলেন। তারা বলেছিলেন, আমি বয়স্ক। আমি বলেছিলাম, আমি ঝুঁকিটা নিতে চাই। আমি যদি বেঁচে যাই তাহলে সেটা হবে সুখের। বেঁচে থাকার একটা ভালো সুযোগ ছিল আমার এবং তারা আমাকে সুযোগটা দিয়েছেন।

ডাউনটাউন টরন্টো হসপিটালে কিডনি প্রতিস্থাপন কর্মসূচি গুরুতর কিডনি রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য একটি বিশেষায়িত সেন্টার। হাসপাতালের তথ্য অনুযায়ী, তাওরোর কিডনি প্রতিস্থাপনের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে কয়েক দফা হাসপাতাল তার স্বাস্থ্য মূল্যায়ন করে ও তার সঙ্গে কথা বলে।

কিডনি প্রতিস্থাপন কর্মসূচির নিবন্ধিত নার্স মেরিয়াম জেওমা-অস্ট্রিয়া বলেন, আমাদের কর্মসূচিতে রোগীর বয়স কত সেটা কোনো বিষয় নয়। মূল বিষয় হলো তার সার্বিক স্বাস্থ্য কেমন সেটা। তার হৃদপিন্ড মূল্যায়ন থেকে শুরু করে অস্থিমজ্জা বিশ্লেষণ সবই করা হয়েছে।

২০২৩ সালের ১১ জুন যেদিন তাওরো অস্ত্রোপচারের সময় আসে সেদিনও তার ছেলে লিওনেল বিষয়টি জানতেন না। সিটিভি নিউজ টরন্টোকে তিনি বলেন, তিনি নিয়মিত হাসপাতালে পরীক্ষার জন্য যান। তাই কেন সবাই তার বাবাকে বিদায় জানাচ্ছে তা দেখে বিভ্রান্ত হই। বাবা আমাকের উদ্বেগের মধ্যে ফেলতে চাননি। তাই আমি বলে, ঠিক আছে বাবা, তুমি পরীক্ষা করতে যাও, কাল দেখা হবে। এরপর বাবা ট্যাক্সিতে উঠে বসেন এবং নিজেই হাসপাতালে যান।

পরদিন সকালে লিওনেল তাওরো তার বাবার অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হওয়ার বিষয়ে মায়ের কাছ থেকে ফোন পান। লিওনেল তাওরো বলেন, কথাটা শুনে আমি অবাক হয়ে গিয়েছিলাম।

- Advertisement -

Read More

Recent