শুক্রবার - মে ২৪ - ২০২৪

সানশাইন লিস্টে ফোর্ডের কার্যালয়ের ৪৮ কর্মী

লিবারেল সংসদীয় নেতা জন ফ্রেজার আইনসভায় একটি ব্যাগে ভরা ছোট এক কৌটা মাশরুমের গ্রেভি পাঠিয়েছেন তাকে

অন্টারিওর প্রিমিয়ার ডগ ফোর্ডের কার্যালয়ের ৪৮ কর্মী সানশাইন লিস্টে (যাদের বার্ষিক বেতন ১ লাখ ডলার বা তার বেশি) থাকার বিষয়টি প্রকাশিত হওয়ার তার পরিবারের পুরোনো একটি শ্লোগান তাকে স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয়েছে। লিবারেল সংসদীয় নেতা জন ফ্রেজার আইনসভায় একটি ব্যাগে ভরা ছোট এক কৌটা মাশরুমের গ্রেভি পাঠিয়েছেন তাকে।

সাংবাদিকদের ফ্রেজার বলেন, তিনি এটা ঠিক পাননি। আমাকে এটা ব্যাখ্যা করতে হতো। কিন্তু এটা তার পাওয়া উচিত এবং আমি মনে করি তার জানা উচিত। কারণ, আমার জানা মতে, প্রিমিয়ার অবশ্যই গ্রেভি ট্রেন (কম পরিশ্রমে বেশি অর্থ উপার্জন) উদ্ভাবন করেননি। তবে নিশ্চিতভাবেই এটা ফিরিয়ে এনেছেন।

- Advertisement -

প্রিমিয়ারের প্রয়াত ভাই রব ফোর্ড মেয়রের নির্বাচনে প্রচারণাকালে ব্যাপকভিত্তিতে ‘স্টপ দ্য গ্রেভি ট্রেন’ শ্লোগানটি ব্যবহার করেন। তিনি কীভাবে লাল ফিতা কেটে ফেলবেন এবং করদাতাদের অর্থ সাশ্রয় করবেন সেটা বোঝাতে শ্লোগানটি ব্যবহার করেন তিনি।

অন্টারিও লিবারেলরা বচনটি আইনসভায় ফিরিয়ে এনেছেন। তাদের মতে, ফোর্ড সরকার এর বিপরীতটাই করছে। ফ্রেজার বলেন, আমি ওটা করেছি তাকে এটা স্মরণ করিয়ে দিতে যে, তার অফিসের কর্মী সংখ্যা তিনি দ্বিগুণের বেশি করে ৪৮ জনে উন্নীত করেছেন, যাদের সবারই বেতন বছরে এক লাখ ডলার বা তার বেশি। তাদের সবার আয় মধ্যবিত্ত কানাডিয়ান পরিবারের চেয়ে বেশি। আমার মতে, এটা কেবল ভুলই নয়। আমার মতে, এটা কদর্যও বটে।

সানশাইন লিস্ট অনুযায়ী, প্রিমিয়ারের কার্যালয়ের ৪৮ জন কর্মী সদস্যকে ২০২৩ সালে বেতন দেওয়া হয়েছে প্রত্যেককে এক লাখ ডলারের বেশি। সব মিলিয়ে প্রিমিয়ারের কার্যালয় কর্মীদের বাবদ ব্যয় করেছে প্রায় ৭০ লাখ ডলার। ২০২২ সালে প্রিমিয়ারের কার্যালয়ে কর্মী সংখ্যা ছিল ৩১ জন এবং তাদের পেছনে ব্যয় হয়েছে ৪৭ লাখ ডলারের কিছু বেশি।

- Advertisement -

Read More

Recent