শুক্রবার - মে ২৪ - ২০২৪

অন্টারিওতে চিকিৎসকদের পেপারওয়ার্ক কমাতে এআই কর্মসূচি

অন্টারিও সরকার আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই কর্মসূচি চালু করতে যাচ্ছে যা পারিবারিক চিকিৎসকদের ওপর থেকে পেপারওয়ার্কের বোঝা কমাতে সাহায্য করবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী সিলভিয়া জোন্স ২৪ এপ্রিল টরন্টোতে এই ঘোষণা দেন

অন্টারিও সরকার আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) কর্মসূচি চালু করতে যাচ্ছে, যা পারিবারিক চিকিৎসকদের ওপর থেকে পেপারওয়ার্কের বোঝা কমাতে সাহায্য করবে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী সিলভিয়া জোন্স ২৪ এপ্রিল টরন্টোতে এই ঘোষণা দেন।

সাংবাদিকদের তিনি বলেন, আমাদের সরকার ১৫০ এর বেশি স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর জন্য এআই স্ক্রাইব নামে উদ্ভাবনীমূলক কর্মসূচি চালু করতে যাচ্ছে, যারা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে স্বয়ংক্রিয়ভাবে রোগীদের সঙ্গে কথোপকথনের সারসংক্ষেপ করবে বা কথোপকথনের লিখিত রূপ দেবে। এক্ষেত্রে অবশ্য রোগীদের সম্মতি থাকতে হবে।

- Advertisement -

কর্মকর্তারা জানান, পার্সোনাল হেলথ ইনফরমেশন প্রোটেকশন অ্যাক্টের আওতায় রোগীদের তথ্য অব্যাহতভাবে সুরক্ষিত থাকবে। এক্ষেত্রে তারা গবেষণার কথা উল্লেখ করেন। সেখানে বলা হয়েছে, নথিকরণের চিকিৎসকদের যে সময় ব্যয় হয় এআই স্ক্রাইব তা ৫০ শতাংশ কমিয়ে আনবে।

অন্টারিও মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (ওএমএ) বলেছে, পারিবারিক চিকিৎসকরা সপ্তাহে প্রায় ১৯ ঘণ্টা ব্যয় করেন প্রশাসনিক কাজে। এর মধ্যে চার ঘণ্টা ব্যয় হয় নোট লেখা ও রোগীদের ফরম পূরণ বাবদ।

ওএমএর প্রেসিডেন্ট অ্যান্ড্রু পার্ক বলেন, ২৩ লাখ অন্টারিওবাসীর কোনো পারিবারিক চিকিৎসক নেই। এটা আদৌ ঠিক নয় এবং এর একটা সমাধান হওয়া দরকার। চিকিৎসকদের তাদের সময়ের বড় অংশ কম্পিউটারের সামনে কাটাতে হয়। যেমনটা তাদের কাটাতে হয় রোগীদের সামনে।

পার্ক বলেন, পেপারওয়ার্ক চিকিৎসকদের বেশি সংখ্যক রোগী দেখা থেকে বিরত রাখছে। সেই সঙ্গে কাজ ও জীবনের মধ্যে সামঞ্জস্যও ব্যাহত করছে। এআই স্ক্রাইবে অর্থায়নকে স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন, পরীক্ষামূলক এই কর্মসূচির ফলাফল দেখার অপেক্ষায় রয়েছেন তিনি।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী সিলভিয়া জোন্স বলেন, পেপারওয়ার্কের বোঝা কীভাবে আরও কমানো যায় একটি কমিটি তা পর্যালোচনা করে দেখছে।

একই সঙ্গে প্রদেশ ফ্যাক্স মেশিনের পরিবর্তে রেফারেল এবং কনসালটেশন ফরম ডিজিটাইজ করছে। পাশাপাশি ফরম শেয়ার সহজ করতে ডিজিটাল টুল ব্যবহারের জন্যও উৎসাহ দিচ্ছে। কর্মকর্তারা বলছেন, তাদের আশা এসব উদ্যোগ প্রতি বছর চিকিৎসকদের প্রশাসনিক কাজ বাবদ প্রায় ৯৫ হাজার ঘণ্টা সাশ্রয় করবে।

- Advertisement -

Read More

Recent