শুক্রবার - জুন ২১ - ২০২৪

নতুন কন্ডোর বিক্রি তলানিতে

বিক্রি কমে যাওয়ার কারণ মূলত উচ্চ সুদের হার যার ফলে নির্মাণ ও ঋণের ব্যয় বেড়ে গেছে

টরন্টোতে নির্মাণ-পূর্ব কন্ডোর বিক্রি এমন অবস্থানে নেমে এসেছে ১৫ বছর আগে বৈশি^ক আর্থিক সংকটের পর থেকে যা কখনো দেখা যায়নি। সম্ভাব্য ক্রেতা আকর্ষণে ডেভেলপাররা এখন আরও লাভজনক প্রণোদনা চাইছেন।

আরবানেশনের গত মাসের প্রতিবেদনে বলা হয়, চলতি বছরের এখন পর্যন্ত গ্রেটার টরন্টো অ্যান্ড হ্যামিল্টন এরিয়ায় (জিটিএইচএ) নির্মাণ এখনো শেষ হয়নি এমন মাত্র ১ হাজার ৪৬১টি বাড়ি বিক্রি হয়েছে। ২০০৯ সালের পর এটাই প্রথম প্রান্তিকের সর্বনিম্ন বিক্রি। ২০০৯ সালের প্রথম প্রান্তিকে মাত্র ৮৮৪টি নির্মাণ-পূর্ব কন্ডো বিক্রি হয়েছিল।

- Advertisement -

প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকের বিক্রি গত দশ বছরের প্রথম প্রান্তিকের গড়ের তুলনায় ৭১ শতাংশ কম। ২০২৪ সালের প্রথম প্রান্তিকের বিক্রি ২০২২ সালের প্রথম প্রান্তিকের তুলনায় ৪৫ শতাংশ কমে গেছে। ২০২২ সালের প্রথম প্রান্তিকে হাতবদল হয়েছিল ৯ হাজার ৭২৩টি কন্ডো ইউনিট।

বিক্রি কমে যাওয়ার কারণ মূলত উচ্চ সুদের হার, যার ফলে নির্মাণ ও ঋণের ব্যয় বেড়ে গেছে। কিছু ক্ষেত্রে উচ্চ সুদের হার আগে ক্রয় করা ইউনিট শেষ করায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে। কারণ, তাদের আর ঋণ নেওয়ার যোগ্যতা থাকছে না।

আরবানেশনের প্রতিবেদনে আরও দেখা গেছে, ২০২২ সালে বাজারে যখন শ্লথতা দেখা দেয় তখন টরন্টো রিজিয়নের ৬০টি প্রকল্প অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত হয়ে যায়। এই প্রজেক্টগুলোতে ইউনিটের সংখ্যা ২১ হাজার ৫০৫টি।

রয়্যাল লাপেজের আরইসি কানাডার ব্যবস্থাপনা অংশীদার সিমিয়ন পাপাইলিয়াস বলেন, ৭০ শতাংশ ইউনিট বিক্রি না হওয়া পর্যন্ত যে একটি ভবন নির্মাণ করা যায় না এটা সবাই জানে। ২০০ ইউনিটের ভবনের নির্মাণ শুরু করার আগে তাদেরকে যদি অন্তত ৭০ শতাংশ ইউনিট বিক্রি নিশ্চিত করতে হয় তাহলে সংখ্যাটি দাঁড়ায় ১৪০ ইউনিট। পুরো জিটিএতে বিক্রি হয়েছে দেড় হাজার ইউনিট। চালুর চেষ্টা করা হয়েছিল এমন ৭০টি প্রকল্পের মধ্যে প্রকৃতপক্ষে বাজারে এসেছে সাতটি।

- Advertisement -

Read More

Recent