শুক্রবার - জুলাই ১৯ - ২০২৪

বেঁচে থাকুক ভালোবাসা

সেক্সুয়ালিটি খুব সহজ কিন্তু অভিমান মিশ্রিত ভালোবাসা একটু জটিল

সেক্সুয়ালিটি খুব সহজ কিন্তু অভিমান মিশ্রিত ভালোবাসা একটু জটিল। যৌনতা ও ভালোবাসার মধ্যে সময়ের দুরত্বে থাকলেও বিশ্বাসের দূরত্ব থাকাটা উচিত নয়। আস্থা ও বিশ্বাস মনের মধ্যে ভালোবাসার বাগান তৈরি করে আর সেই বাগানের ফুলের সুবাস ছড়িয়ে যায় যৌনতার লগ্নে। বাগানে ফুল ঝরে নতুন ফুল আসে। সময় কখন বেশি কথা বলে, উচিত কথা বলে।সময় দূরত্ব বাড়িয়েও দেয় কিন্তু মনের বাগানের ফুল চির সবুজ। দুটো গোলাপের মিলন বিশ বছর পর। মিঃ আলসেন্দ্রা ও আন্না সেই দুটো গোলাপ। একটি লাল গোলাপ আরেকটি সাদা গোলাপ।

সেক্স শুধু অর্গাজমের চূড়ান্ত পরিতৃপ্তি নয় এটা বিশ্বাস অবস্থার শিল্প। তাদের মধ্যে সেক্সুয়ালিটি সম্পর্ক যেমন আছে তেমনি আছে ভেজলহীন ভালোবাসা। দেশ, সমাজ ও সংস্কৃতির ধরন অনুযায়ী ভালোবাসার রং ও সেক্স ভিন্ন হতে পারে। তবে আমি এই ইতালিয়ান সিরিজ নিয়ে ব্যাখা করছি। মিঃ আলসেনন্দ্রা ও মিসেস আন্নার কৈশোর ও মধ্য বয়সের প্রেম কাহানি ও তাদের সামাজিক জীবন ড্রামার মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে। অনেকদিন পর রোমান্টিক সিরিজ দেখলাম।।

- Advertisement -

সিরিজে দুটো ভিন্ন টাইমলাইন দেখানো হয়েছে। ফুটন্ত যৌবন আর মধ্য বয়সের প্রেম। ফুটন্ত যৌবন বলতে মিঃ আলসেন্দ্রা ও মিসেস আন্নার টিনেজ বয়সের প্রেম। মধ্য বয়সের প্রেম মনে চল্লিশ বছর বয়সের মতন। বিশ বছর পরেও সেই প্রেমে একেই রকম আছে। মনের বয়স ও প্রেমের বয়স বাড়ে না।বলেছিলাম ভালোবাসা জটিল কারণ তাকে ধারন করতে হয় নানা সরল অংক সমাধান করে। তারা দুইজন এই অংক সমাধানে ব্যস্ত থাকে।।

মিঃ আলসেন্দ্রা ও মিসেস আন্নার পরিচয় হয় ভুল বুঝাবুঝির মাধ্যমে। চলন্ত ট্রেনে। চার চোখ যেনো প্রেমের দরোজায় করা নাড়তে মগ্ন। কিছুটা বন্ধুর পথ অতিক্রম করে প্রেমের দরজা খুলে ফেললো। লবনাক্ত সমুদ্র তাদের মিষ্ট ভালোবাসার গন্ধ পেতে থাকে। মেঘের ওপার থেকে সূর্য সাক্ষী হয়ে রইলো। তবে সময় ভিন্ন পথ তৈরি করে দিল।হটাত করেই বিশ বছরের বাধা দেয়াল আটকে গেলো আবেগগুলো। আবেগগুলো ফুটে উঠে সাদা পাতায় কালো কালিতে। চিঠির মধ্যেই যেনো এক একটা প্রাণ বাস করে।এটা আবেগের প্রাণ, ভালোবাসার প্রাণ। সময়টা তখন ছিলো ১৯৯০।।

আলসেন্দ্রা একজন আর্কিটেক্ট, বিয়েও করেছেন। তার স্ত্রী মিলানে থাকে।তার মা অসুস্থ। তাই মায়ের সেবায় মনযোগ দিতে ভুলে না। মা ও ছেলের বন্ধন খুব সুন্দর ভাবে তুলে ধরা হয়েছে। মাঝে মাঝেই মায়ের পাশে বসে সমুদ্রের তীরে গল্প করে। মায়ের অনেক অজনা স্মৃতি তাকে মুগ্ধ করে।

তবে মিসেস আন্নার হাজবেন্ড গিউডো বিজনেস করে। বিশ বছর পরে তাদের হটাত দেখার পর তাদের জীবনে কিছুটা পরিবর্তন হলো। বাক্স বন্দী ভালোবাসা মুক্ত পেলো। মিঃ আলসেন্দ্রা সম্পর্কটা তদের পুরোনো প্রেমের সম্পর্কটা চালিয়ে নিলেও মিসেস আন্নার মধ্যে ভয় কাজ করে কারণ তার হাজবেন্ড আছে। দুজনে আবার আলাদা হতে চাইলেও মায়ার টানে আলাদা হতে পারেনি।

ভালোবাসা রং বদলায়, সেই রং দিয়ে চাইলেও নতুন কোন জীবনের ছবি আঁকা যায় না। ভালোবাসার ছন্দপতন হয়। মিঃ আলসেন্দ্রা ও মিসেস আন্না পালিয়ে যেতে চাইলেও সেটা হয়ে উঠছে না। আলসেন্দ্রার স্ত্রী আছে। মিসেস আন্নার হাসবেন্ড আছে। দুজনের পথ কিছুটা ভিন্ন।

সিরিজে সেক্সুয়ালিটি গুরুত্ব পেয়েছে। আন্না ও আলসেন্দ্রার মধ্যে ভালোবাসা ছোট বেলা থেকেই তাই তাদের সেক্স এর রং ভিন্ন ভাষা ভিন্ন। গভীর মায়া আছে। তবে আন্না যখন তার হাজবেন্ড এর সাথে সেক্স করে আবার আলসেন্দ্রা যখন তার স্ত্রীর সাথে সেক্স করে সেই সেক্স ধরন ভিন্ন কারণ সেটা দায়িত্ব। ভালোবাসা ও মায়া দিয়ে সেক্স করা আর বিয়ের পর দায়িত্ব নিয়ে সেক্স করার মধ্যে অনুভতির পার্থক্য আছে। নগ্ন দেহের ভাষার পার্থক্য আছে।।

তাদের সম্পর্ক কোন পর্যায়ে যাবে, কি হবে সেটার জন্য ছয় পর্ব দেখতে হবে। ইতালির মিলান শহর, বলোগোনা শহর সুন্দর ভাবে প্রেজেন্ট করা হয়েছে।।

- Advertisement -

Read More

Recent