শনিবার - এপ্রিল ২০ - ২০২৪

স্কারবোরোর এক মায়ের অসহায়ত্ব

স্থানীয় একটি হাসপাতালে অসুস্থ্য শিশুর জরুরি চিকিৎসা নিতে যাওয়াটা এখন পর্যন্ত তার সবচেয়ে হতাশাজনক অভিজ্ঞতা বলে মন্তব্য করেছেন স্কারবোরোর এক মা। ১০৭ ডিগ্রি জ¦র ওঠার পর মঙ্গলবার শিশুটিকে স্কারবোরো হেলথ নেটওয়ার্কের (এসএইচএন) কিডস আফটার আওয়ার্স ক্লিনিকে নিয়ে আসেন সোফি নামে ওই মা। নিরাপত্তার কারণে তার পুরো নাম এখানে প্রকাশ করা হলো না।

- Advertisement -

দুই সন্তানের ওই সিঙ্গেল মা বলেন, নিবন্ধনের জন্য কাগজপত্রে কিছু তথ্য পূরণের সময় দেখতে পান তার সন্তানের ওএইচআইপি কার্ডের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। তাতেও তার মধ্যে তেমন কোনো উদ্বেগ তৈরি করেনি। কারণ, কিছুদিন আগেও হাসপাতালে তাদের একটি অ্যাপয়েন্টমেন্ট ছিল।

সোফিয়া বলেন, আমার মনে হয়নি এটা কোনো সমস্যা হবে। আমি শুনেছি যে, সিককিডস হাসপাতাল অতিরিক্ত রোগী ও দীর্ঘ অপেক্ষা সময় সমাধানের চেষ্টা করছে। এ কারণে ডাউনটাউনে যাওয়ার আগে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলাম। শিশুর মেয়াদোত্তীর্ণ হেলথ কার্ডই আসলে সমস্যা তৈরি করে এবং আমার কাছ থেকে হাসপাতালের বিল চাওয়া হয়। এর পরিমাণ প্রায় ৫০০ ডলার।

সোফিয়া সদ্যই মাতৃত্বকালীন ছুটি শেষে কাজে ফিরেছেন এবং পরিবারের খরচ জোগাড়ে হিমশিম খাচ্ছেন। এসএইচএনের কর্মীদের কাছ থেকে ভালো ব্যবহার না পাওয়ার অভিযোগও করেন তিনি। সোফিয়া বলেন, আমি হতাশ, উদ্বিগ্ন এবং হয় পেয়েছিলাম। নিজেকে খুব অসহায় লাগছিল।

সোফিয়ার সন্তান নির্ধারিত সময়েল আগেই ভুমিষ্ঠ হয়েছে এবং তার বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্য সমস্যা রয়েছে। তিনি বলেন, আমার সন্তান অসুস্থ এবং আমি কেবল তার সুস্থতা চেয়েছিলাম।

সোফিয়া এখন হাসপাতালের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করতে চান। বিষয়টি এগিয়ে নিতে স্থানীয় কয়েকজন রাজনীতিকের সঙ্গেও তার যোগাযোগ হয়েছে বলে জানান তিনি। সোফিয়া বলেন, কর্মীরা লোকজনের সঙ্গে কি ধরনের আচরণ করছেন, স্কারবোরো জেনারেল হাসপাতালের তা জানা উচিত। আমার ক্ষেত্রে যা হয়েছে, আমি চাই না অন্য আরেকজন রোগীর ক্ষেত্রেও তাই হোক।

স্কারবোরো হেলথ নেটওয়ার্কের মুখপাত্র লেই ডানকান বলেন, আমাদের নীতি হচ্ছে, ওএইচআইপি কার্ডের মেয়াদ শেষ হলেও কোনো রোগীকে দেখার আগে তার কাছ থেকে ফি না চাওয়া। বৈধ কার্ড ছাড়া রোগী দেখা আমরা অস্বীকার করি না। কার্ডটি মেয়াদোত্তীর্ণ হলেও। প্রয়োজনের সময় রোগীকে সেবা প্রদান অস্বীকার করে না এসএইচএন। এমনকি তাদের হেলথ কার্ডের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও।

সোফিয়াকেও সেবা দিতে আনুষ্ঠানিকভাবে অস্বীকৃতি জানায়নি স্কারবোরো জেনারেল। কিন্তু সেবাটি নিতে তার কাছ থেকে অর্থ দাবি করা হয়েছে বলে জানান সোফিয়া।

- Advertisement -

Read More

Recent