বুধবার - ফেব্রুয়ারি ২১ - ২০২৪

কার্বন প্রাইসিং নিয়ে অস্বস্তিতে বাজেট ওয়াচডগ

কার্বন প্রাইসিংয়ের আর্থিক বিশ্লেষণের বাছাই করা কিছু বিষয়ের ব্যবহার নিয়ে অস্বস্তিতে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন কানাডার পার্লামেন্টারি বাজেট অফিসার

কার্বন প্রাইসিংয়ের আর্থিক বিশ্লেষণের বাছাই করা কিছু বিষয়ের ব্যবহার নিয়ে অস্বস্তিতে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন কানাডার পার্লামেন্টারি বাজেট অফিসার ইভস জিরু। তিনি বলেছেন, আমরা কী করছি না করছি সেটা বিষয় নয়। এখানে একটা খরচ আছেই।

জিরু নতুন এক প্রতিবেদনের মাধ্যমে রাজনীতির মাঠে গত সপ্তাহে হৈচৈ ফেলে দেন। সেখঅনে তিনি বলেন ৮০ শতাংশ পরিবারের জন্য কার্বন প্রাইস রিবেট কার্বন প্রাইসের প্রত্যক্ষ খরচের চেয়ে বেশি। কিন্তু চাকরি ও আয় বৃদ্ধিতে কার্বন প্রাইসের অর্থনৈতিক প্রভাব হিসাব করলে অধিকাংশ প্রদেশের ৮০ শতাংশ পরিবারের আয় কমবে।

- Advertisement -

যেসব লিবারেল ২০১৯ ও ২০২১ সালের নির্বাচনে কার্বন প্রাইসিংয়ের পক্ষে কথা বলেছিলেন তারা প্রথম বিষয়টিকে বেছে নিয়েছেন। কিন্তু কার্বন প্রাইসিং বাতিলের পক্ষে থাকা কনজার্ভেটিভরা বেছে নিয়েছেন দ্বিতীয় বিষয়টি।

জিরু বলছেন, আপনি আলোচনার জন্য একটি অংশকে বেছে নিতে পারেন না। প্রতিবেদনের মাত্র একটি দিকে আলোকপাত করায় আমি উদ্বিগ্ন। সামগ্রিক চিত্রটা দেখতে হবে। জলবায়ু পরিবর্তন প্রতিরোধে আমরা যাই করতে যাই না কেন তাতে খরচ হবেই। এটা হতে পারে কার্বন ট্যাক্স অথবা জীবাশ্ম জøালানির ব্যবহার কমিয়ে আনা। নিয়ন্ত্রণেরও ব্যয় আছে। আবার কিছু না করারও ব্যয় আছে।

জ¦ালানির মূল্য যত বেশি হবে এর ব্যবহার তত কম হবেÑএই ধারণার ওপর দাঁড়িয়ে আছে কার্বন প্রাইসিং। এর ফলে কার্বন নিঃসরণ কমে আসবে। এই উচ্চ মূল্য পুষিয়ে দেওয়া হবে রিবেটের মাধ্যমে। বিষয়টি সহজ মনে হতে পারে। কিন্তু বাস্তবতা বেশ জটিল। এ সংক্রান্ত নীতি নিয়ে অপপ্রচার রয়েছে ব্যাপক।

- Advertisement -

Read More

Recent