বুধবার - মে ২২ - ২০২৪

টর্নেডো নিয়ে রহস্যভেদ

অন্টারিওর লন্ডনের ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির নর্দার্ন টর্নেডোজ প্রজেক্টের পূর্ণকালীন প্রকৌশলী কনেল মিলার বলেন আমি নিজেকে টর্নেডো গোয়েন্দা হিসেবে ভাবতেই বেশি পছন্দ করি আমি সেখানে স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে নিজেকে বিপদের মধ্যে ফেলতে চাই না আমি সেটা স্টর্ম চেজারদের হাতে ছেড়ে দিতে চাই

কানাডায় টর্নেডো নিশ্চিত করা মানে বনে গাছ পড়ে যাওয়ার মতো খানিকটা। সেখানে কেউ যদি উপস্থিত না থাকে তাহলে এটা কখনোই ঘটবে না।

কিন্তু কানাডার আবহাওয়া বিজ্ঞানী, প্রকৌশলী ও বিশ^বিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের একটি গ্রুপ আধুনিক প্রযুক্তির সহায়তায় এটা বদলানোর কাজে লেগেছেন। অন্টারিওর লন্ডনের ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির নর্দার্ন টর্নেডোজ প্রজেক্টের পূর্ণকালীন প্রকৌশলী কনেল মিলার বলেন, আমি নিজেকে টর্নেডো গোয়েন্দা হিসেবে ভাবতেই বেশি পছন্দ করি। আমি সেখানে স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে নিজেকে বিপদের মধ্যে ফেলতে চাই না। আমি সেটা স্টর্ম চেজারদের হাতে ছেড়ে দিতে চাই।

- Advertisement -

২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠিত প্রকল্পটিতে অর্থায়ন করেছে টরন্টোভিত্তিক ইম্প্যাক্ট ডব্লিউএক্স, যার উদ্দেশ্য চরম আবহাওয়ার প্রভাব কমিয়ে আনা। টর্নেডো পরবর্তী তদন্তে এটাই প্রথম। জলবায়ু পরিবর্তন চটলতে থাকায় টর্নেডো চিহ্নিতকরণ ও এ সংক্রান্ত পূর্বাভাসের বিষয়টিও এতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সবগুলোরই উদ্দেশ্য মানুষের জীবন ও সম্পদের সুরক্ষা।

টর্নেডোর ব্যাপকতায় যুক্তরাষ্ট্রের পরই কানাডার অবস্থান। কিন্তু নর্দার্ন টর্নেডোজ প্রজেক্টের আগ পর্যন্ত সীমান্তের উত্তরে টর্নেডোর সংখ্যা নিয়ে একটা ধাধা ছিল। প্রতি বছর সংখ্যাটি ধরা হতো ৬০। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে সংখ্যাটি এর দ্বিগুন।

প্রকল্পের সহ-প্রতিষ্ঠাতা গ্রেগ কপ বলেন, প্রতি বছর কানাডায় টর্নেডোরযে হিসাব দেওয়া হয় তা সঠিক বলে আমরা মনে করি না। আমাদের ধারণা সংখ্যাটি অনেক কম করে দেখানো হয়। অনুল্লেখিত সেই টর্নেডোগুলো খুঁজে বের করাই আমাদের লক্ষ্য।

This article was written by Rezaul Haque as part of the LJI

- Advertisement -

Read More

Recent