বৃহস্পতিবার - এপ্রিল ১৮ - ২০২৪

আমরা তাঁকে ধরে রাখতে পারিনি

কবি আসাদ চৌধুরী

আজ বৃ্হস্পতিবার, অক্টোবর ৫, ২০২৩, ভোর ৩.০৩ মিনিটে, কানাডার অশোয়া শহরে, লে’ক রিজ হাসপাতালে কবি আসাদ চৌধুরী শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ইন্নাল ইল্লা হি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজেউন। কবির নামাজে জানাযা ও অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতা পরে জানানো হবে।
উল্লেখ্য, কবি আসাদ চৌধুরী ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন৷

কবির নামাজে জানাযা আগামীকাল শুক্রবার বাদ জুমা টরন্টোর নাগেট মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে।

- Advertisement -

** জানাযার পূর্বে বেলা একটায় কবির মরদেহ সর্বসাধারণের শ্রদ্ধা ও সম্মান জানানোর জন্য মসজিদের নিচে প্লে গ্রাউন্ডে এক ঘন্টা রাখা হবে।

** জুমার নামাজের পরপরই জানাযা শেষ করে কবির মরদেহ পিকারিং ডাফিন মেডোজে দাফন করা হবে।

সমকালীন বাংলা কবিদের মধ্যে বিশেষ করে বাংলাদেশের কবি ও কবিতালগ্ন মানুষের কাছে প্রিয়তম একটি নাম কবি আসাদ চৌধুরী। শুধু কবিতা সংক্রান্ত জটিল বিষয় নিয়ে নয়, সংস্কৃতি কিংবা জনগণ সংক্রান্ত রাজনীতি অথবা যে কোন বিষয় নিয়েই তাঁর কথার মায়াময় জাদুতে মন্ত্রমুগ্ধ বিভোর হয়ে শুনতেন তাঁর সামনে অথবা টেলিভিশনের পর্দার সামনের শ্রোতারা। তিনি অসুস্থ শরীরে কানাডার অশোয়া শহরের লে’ক রিজ হাসপাতালে বাকরুদ্ধ হয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন। কবি কথা বলতে চেষ্টা করেন ঠিকই, কিন্তু তা শব্দের উচ্চারণে কথায় ধ্বনিত হতে পারে না। কবির পুত্র আশেক চৌধুরী আসিফ ও জারিফ চৌধুরী ঠিকই বুঝতে পারে পিতার অস্ফুট মর্ম। কবির গলা শুকিয়ে যায়। তৃষ্ণায় তিনি একফোঁটা পানির জন্য আকুল তাকিয়ে থাকেন। পানির জন্য ইশারা করেন পুত্রদ্বয়ের কাছে! কিন্তু ডাক্তার সম্পূর্ণভাবে নিষেধ করে দিয়েছেন মুখ দিয়ে পানি পান করাতে। এতে পানির তরল আক্রমণের কারণে কবির বুকে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে চরম বিপদ হতে পারে। কবির এই শারীরিক অবস্থায় যতটুকু পানির প্রয়োজন তা সেলাইনের মাধ্যমে দেওয়া হয়। আসিফ ডাক্তারের নিষেধের কথা বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করলে তিনি পুত্র আসিফকে বুঝাতে চান – ‘আমার পুলা হয়ে এরকম ভয় পায়!’

আসাদ চৌধুরীর পরিবারের প্রতিটি সদস্যদের সাথে সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে থাকা কবির স্বজন-ভক্ত-বন্ধু-শুভাকাঙ্ক্ষী সবাই তাঁর সুস্থতার জন্য প্রার্থনায় ও শুভকামনায় আশায় বুক বেঁধে আছেন, কবি এই অবস্থা থেকে অন্তত কিছুটা সুস্থ হবেন। তাঁর কষ্ট লাগব হবে। তিনি আবার কথা বলার সক্ষমতা পেয়ে নিজের অন্তরের আর্তি প্রকাশ করবেন। আমাদেরকে আশার কথা শোনাবেন। আমরা যে ঘোর অমানিশার এক অন্ধ স্বার্থের পৃথিবীতে প্রতি মুহূর্তে বাঁচার নামে অন্ধকারে তলিয়ে যাচ্ছি, কবি ছাড়া আর কে আমাদেরকে আলোর কথা, মানুষের কথা, আশার কথা শোনাবেন!

কবি আসাদ চৌধুরীর মুখে উচ্চারিত শব্দের অমিত শক্তির ধ্বনিতে আমরা আবার শুনতে চাই : মানুষের কল্যাণ কামনাই সবচেয়ে বড় আরাধনা। সুন্দর ও সত্য প্রতিষ্ঠাই ব্যক্তি মানুষের উত্তম সাধনা। কবির জন্য আমাদের অবিরাম ভালোবাসা। তাঁর পরিবারের সবার প্রতি আমাদের সহমর্মিতা ও শুভকামনা। প্রতিদিন যে যুদ্ধজয়ের আশায় তারা সেবাব্রতের মহান ভারকে বহন করে চলেছেন, দূরে থেকেও আমাদের অনুভবের কাঁধ ও ভালোবাসার হাতটি তাদের দিকে বাড়ানো আছে। আমরা তাদের সবার হাতটি ধরে আছি।

টরন্টো, কানাডা

- Advertisement -

Read More

Recent