শনিবার - মার্চ ২ - ২০২৪

পরামর্শ ছাড়াই অন্টারিওর শহরের সীমানায় পরিবর্তন

স্টাইলিস বলেন এটা সরকারের অভ্যন্তরীণ ব্রিফিং নোট গ্রিন স্পেস ও ফার্মল্যান্ড পর্যন্ত একতরফাভাবে সীমানা সম্প্রসারণের সিদ্ধান্ত যে সঠিক নয় সরকার সেটা জানত

অন্টারিওর ছয়টি মিউনিসিপালিটির শহুরে সীমানা পরিবর্তনের সিদ্ধান্তের সময় আদিবাসীদের পরামর্শ নিলে বা তৃতীয় পক্ষকে সম্পৃক্ত করলে বিরোধিতার মুখে পড়তে পারে বলে ভালোই জানা ছিল প্রোগ্রেসিভ কনজার্ভেটিভ সরকারের। এনডিপির ফাঁস হয়ে যাওয়া অভ্যন্তরীণ নথিতে এমনেটাই বলা হয়েছে।

২০২৩ সালের এপ্রিলের ওই মেমো ৪ অক্টোবর গণমাধ্যমকে সরবরাহ করা হয়। এনডিপি নেতা মারিট স্টাইলিস বলেন, সরকারের ভেতরেরই কেউ এগুলো তাদেরকে সরবরাহ করেছে।

- Advertisement -

সীমানা পরিবর্তনের প্রভাব কী হতে পারে তার একটা ধারণা দেওয়া আছে নথিতে। সেই সঙ্গে বিবাদপূর্ণ বিষয় ও তা প্রশমনের কৌশলও বর্ণনা করা আছে নথিতে।

স্টাইলিস বলেন, এটা সরকারের অভ্যন্তরীণ ব্রিফিং নোট। গ্রিন স্পেস ও ফার্মল্যান্ড পর্যন্ত একতরফাভাবে সীমানা সম্প্রসারণের সিদ্ধান্ত যে সঠিক নয় সরকার সেটা জানত। এক্ষেত্রে তা কেবেল ধারণার ওপর নির্ভর করেছে। উপাত্তের ওপর নয়। অনেকগুলো শহরের সীমানা পরিবর্তনের বিষয়টি মিউনিসিপাল কর্মীরা পর্যালোচনা করেও দেখেননি।

অন্টারিওর সরকার ২০২২ সালের ডিসেম্বরে ছয়টি মিউনিসিপালিটির সরকারি নগর পরিকল্পনা সংশোধনের প্রস্তাব করে। মিউনিসিপালিটিগুলো হলো ওয়াটারলু, ওয়েলিংটন কাউন্টি, গুয়েল্ফ, ব্যারি, বেলভিল এবং পিটারবোরো। নথিতে সরকার বলেছে, এই পরিবর্তনের ফলে ২০৫১ সাল নাগাদ ৩ হাজার ৭০০ হেক্টর জমি উন্নয়নের জন্য পাওয়া যাবে। নথিতে এরপর প্রত্যেক মিউনিসিপালিটির ব্যাপারে বিস্তারিত বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে সম্ভাব্য সমস্যাগুলোর কথাও উল্লেখ করা হয়েছে।

যেমন ওয়াটারলু অঞ্চলের ব্যাপারে বলা হয়েছে, সম্প্রসারণের সেখানে শক্ত বিরোধিতায় পড়তে হতে পারে।

This article was written by Rezaul Haque as part of the LJI

- Advertisement -

Read More

Recent